বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

শেখ রাসেল দিবসে বিশেষ অবদানের জন্য দেয়া হবে ১০ স্বর্ণপদক

বাংলাদেশ কন্ঠ প্রতিবেদক : শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস” এ প্রতিপাদ্যে নিয়ে আগামীকাল  ১৮ অক্টোবর প্রথম বারের মত ‘ক’ শ্রেণির জাতীয় দিবস হিসেবে জাতীয়ভাবে দেশব্যাপী জেলা-উপজেলা এবং বিদেশস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসসমূহে যথাযথ মর্যাদায় উদযাপিত হবে শেখ রাসেল দিবস ২০২১। দিবসটি উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু এবং শিক্ষা, শিল্পকলা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি, ক্রীড়া, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ১০টি শেখ রাসেল স্বর্ণপদক, শেখ রাসেল পদকপ্রাপ্ত ও অনলাইন কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের ২০টি ল্যাপটপ, এলইডিপি’র আওতায় মূল অনুষ্ঠানে ৫টি এবং স্ব স্ব জেলায় ৩৯৯৫টি মোট ৪,০০০টি ল্যাপটপ প্রদান করা হবে। এছাড়া শেখ রাসেল শিশু- কিশোর পরিষদ ৬০টি পুরস্কার বিতরণ করবে। দিবসটির গুরুত্ব তুলে ধরে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে ক্রোড়পত্র প্রকাশিত হবে।
১৭ অক্টোবর রোববার, আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারে বিসিসি অডিটরিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এ তথ্য জানান। এছাড়া দিবসটি উপলক্ষ্যে আইসিটি বিভাগ ও বাংলাদেশ শিশু একাডেমির যৌথ উদ্যোগে আজ ১৮ অক্টোবর সকাল ০৬:০০ টায় বনানী কবরস্থানে শেখ রাসেল এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ০৭:০০ টায় স্ব স্ব মন্ত্রণালয়/বিভাগ/দপ্তর/সংস্থা/প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গনে শেখ রাসেল এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করবে।
সকাল ০৯:৩০ টায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ এবং শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের যৌথ উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) হল অব ফেম-এ শেখ রাসেল দিবস-এর উদ্বোধনী ও পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করবেন। দিবসটি উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, হল অব ফেম-এ বিকাল ০৩:০০ টায় “শেখ রাসেল দীপ্ত জয়োল্লাস, অদম্য আত্মবিশ্বাস” শীর্ষক জাতীয় সেমিনার অনুষ্ঠিত হবে। বিভিন্ন শ্রেণী পেশার বুদ্ধিজীবীগণ আলোচক হিসেবে অংশ্রগ্রহণ করবেন। সন্ধ্যা ০৬:০০ টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র, হল অব ফেম-এ “কনসার্ট ফর পিস এ্যান্ড জাস্টিস” অনুষ্ঠিত হবে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। সকাল ৯:৪৫ টায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমির উদ্যোগে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক পুস্তক প্রদর্শিত হবে। এছাড়াও সকাল ১০:৩০ টায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর ঢাকায় পুস্তস্তবক অর্পণ এবং বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন, দুপুর ১২:০০ টায় শিশু একাডেমি অডিটরিয়ামে শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। বেলা ১:৪৫টায় শিশু একাডেমি মসজিদ ঢাকায় মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, দুপুর ০২:০০মি. মৃত্যুঞ্জয়ী শেখ রাসেল গ্যালারীতে আলোকচিত্র প্রদর্শনী। দিবসটি উপলক্ষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বিদেশস্থ বাংলাদেশ মিশনসমূহে শেখ রাসেল-এর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, জনকূটনীতি অনুবিভাগ হতে প্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর প্রদত্ত বাণীসমূহ পাঠ, শেখ রাসেল-এর উপর নির্মিত প্রামাণ্য চিত্রসমূহ প্রদশিত হবে। এছাড়াও অন্যান্য মন্ত্রণালয়/বিভাগ/প্রতিষ্ঠান/সংস্থা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠান হতে গৃহীত কর্মসূচির আলোকে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। আইসিটি বিভাগ প্রয়োজনীয় কারিগরি সহযোগিতা প্রদান করবে বলে তিনি জানান। সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, শেখ রাসেল ছিলেন অতিথি পরায়ন, বন্ধুবৎসল ও প্রাণচাঞ্চল্য ভরপুর একজন শিশু। শেখ রাসেলের এই অকাল প্রয়াণে সুখ-দুঃখ হয়তো কোনদিন আমাদের শেষ হবে না। শেখ রাসেলের জন্মদিনে আমাদের কামনা ও প্রত্যাশা শুধু বাংলাদেশে নয়, সারা পৃথিবীর শিশুরাই যেন নিরাপদে বেড়ে ওঠে তাদের স্বপ্ন ও সুপ্ত প্রতিভা বিকশিত করতে পারে তার জন্য আমরা সকলেই একসাথে মিলে কাজ করব। এই বাংলাদেশ এবং সারা পৃথিবীতে আগামী প্রজন্মের সন্তানদের জন্য একটি নিরাপদ দেশ ও নিরাপদ বিশ্ব হিসেবে গড়ে তোলার জন্য। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন প্রযুক্তি খাতে ভবিষ্যৎ সন্তানদেরকে শিশু-কিশোরদেরকে পারদর্শী করে তুলতে ডিজিটাল বাংলাদেশ আর্কিটেক্ট বঙ্গবন্ধু সুযোগ্য দৌহিত্র প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনা এবং তার পরামর্শে সারা দেশে ৮ হাজার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। আরো নতুন করে ৫ হাজার শেখ রাসেল ডিজিটাল কম্পিউটার ল্যাব প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে। সাথে সাথে ৩০০ টি সংসদীয় আসনে “স্কুল অফ ফিউচার” এ বছরেই স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছি। পলক আরও বলেন একটি শিশুও যেন পথে না থাকে, গৃহহীন না থাকে তার জন্য সরকারের ১৩টি শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে । সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক মোঃ রেজাউল মাকছুদ জাহেদী ও শেখ রাসেল শিশু কিশোর পরিষদের মহাসচিব কে এম শহীদুল্লাহ ।

এই সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button