অপরাধ

গার্মেন্টস পণ্য চুরি সংঘবদ্ধ চক্রের মূলহোতাসহ ৭ জনকে গ্রেফতার করেছে ডিএমপি

বাংলাদেশ কন্ঠ প্রতিবেদক : বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে গার্মেন্টস পণ্য চুরি সংঘবদ্ধ চক্রের মূলহোতাসহ ৭ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগ। গ্রেফতারকৃতরা হলো মোঃ সাহেদ ওরফে সাঈদ ওরফে সিলেটী সাঈদ (চক্রের মূল হোতা), রাজ্জাক, ইউসুফ, মাইনুল, আলামিন, দুলাল হোসেন ও খায়রুল।
শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ধারাবাহিক অভিযানে রাজধানীর উত্তরা ও কুমিল্লা জেলার বুড়িচং থানা এলাকা হতে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের হেফাজত হতে ৪,৭০৫ পিস গার্মেন্টস তৈরী পোশাকসহ ২টি কাভার্ড ভ্যান জব্দ করা হয়।আজ  সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) ১১:৩০ মিনিটে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার এ কে এম হাফিজ আক্তার।উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা-তেজগাঁও) ওয়াহিদুল ইসলাম। ডিবির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার বলেন, গত ১১ মে, ২০২১ তারিখ তৈরী পোশাক রপ্তানী কারক প্রতিষ্ঠান জয়ন্তি নীট ওয়্যার লিঃ মেসার্স বেলায়েত ট্রান্সপোর্ট এজেন্সির মাধ্যমে কাভার্ড ভ্যান যোগে চট্টগ্রাম বন্দর হয়ে বিদেশে রপ্তানীর উদ্দেশ্যে ৩৭৪ কার্টুনে সর্বমোট ২৮৮২০ পিস পোশাক শিপমেন্ট করে। বিদেশে ক্রেতার কাছে পণ্যের চালানটি পৌঁছানোর পর দেখা যায় প্রতিটি কার্টুনে ২০/৪০ পিস করে সর্বমোট ১১,০০০ পিস পণ্য কম রয়েছে। বিদেশী বায়ার উক্ত মালের ক্ষতিপূরণ বাবদ জয়ন্তি নীট ওয়্যারকে ২৮,৯০৮ ডলার জরিমানা করে। এতে প্রতিষ্ঠানটির আর্ন্তজাতিক সুনামও ক্ষুন্ন হয়। এ ঘটনায় ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ তারিখে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় একটি মামলা রুজু হয়।
তিনি বলেন, মামলাটি রুজু হওয়ার পর গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগের তেজগাঁও জোনাল টিম তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় উক্ত মামলার অভিযুক্তদের সনাক্ত করে। পরবর্তীতে গত ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান করে মহিউদ্দিন, মোবারক, ইব্রাহিম ও কাভার্ড ভ্যানের ড্রাইভার এমরানকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করলে এমরান বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। এঘটনায় চুরি হওয়া মালামাল উদ্ধার ও জড়িত পলাতক অভিযুক্তদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে। সাম্প্রতিক গার্মেন্টস পণ্য চুরির অপর এক ঘটনা সংক্রান্তে তিনি বলেন, গত ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১ তারিখ নেটওয়ার্ক ক্লোথিং লিমিটেড নামক গার্মেন্টস এর তৈরী পোশাক ১,৪৩১ কার্টুনে মোট ১৭,১৫২ পিস বিদেশে রপ্তানীর উদ্দেশ্যে শিপমেন্ট করে। শিপমেন্টের মালামাল চট্টগ্রাম বন্দরে পৌঁছার পর গণনাকালে ৫০০০ পিস মাল কম পাওয়া যায়। এ ঘটনায় ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১ তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় মামলা রুজু হয়। মামলাটি তদন্ত শুরু করে গোয়েন্দা তেজগাঁও বিভাগ। তিনি বলেন, এই মামলা তদন্তকালে তেজগাঁও জোনাল টিম তথ্য প্রযুক্তি ও গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মহানগরীর উত্তরা এলাকা হতে চোরাই গার্মেন্টস মালামাল ও ১টি কাভার্ড ভ্যানসহ রাজ্জাক, ইউসুফ ও মাইনুল, খায়রুলকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের দেওয়া তথ্যমতে কুমিল্লা জেলার বুড়িচং থানার নিমসার এলাকা হতে চোরাই গার্মেন্টস মালামাল ও ১টি কাভার্ড ভ্যানসহ আল-আমিন ও দুলালকে গ্রেফতার করে। তাদের দেওয়া তথ্যমতে উক্ত চক্রের মূল হোতা মোঃ সাহেদ ওরফে সিলেটী সাঈদকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত সাহেদের বিরুদ্ধে ঢাকা ও চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন থানায় ২৪টি মামলা রয়েছে। উক্ত সাহেদ চট্টগ্রামে ৬টি মামলায় দীর্ঘদিন কারাভোগ করেছিলো। গ্রেফতারকৃত সাহেদ প্রায় ৫ সহস্রাধিক ট্রাক/কাভার্ড ভ্যান থেকে বিভিন্ন সময় কয়েক হাজার কোটি টাকার পণ্য চুরি করেছে মর্মে জানান পুলিশের এ গোয়েন্দা কর্মকর্তা।তিনি আরও বলেন, গার্মেন্টস পণ্য পরিবহনে যুক্ত ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান এজেন্সী, ড্রাইভার, শ্রমিক এর সহায়তায় এরকম সংঘবদ্ধ চোরাই চক্রের মাধ্যমে পণ্য চুরি হচ্ছে। এর ফলে সম্ভাবনাময় রফতানীমূখী বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্প দিন দিন ক্রেতা বিমুখ হয়ে পড়েছে। ফলশ্রুতিতে গার্মেন্টস ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত অন্যান্য দেশের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়ছে ও আর্ন্তর্জাতিক ভাবে সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। বাংলাদেশের সুনাম যাতে অব্যাহত থাকে সে লক্ষ্যে গার্মেন্টস পণ্য পরিবহনে নিরাপত্তায় নিরলসভাবে কাজ করছে বাংলাদেশ পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদেরকে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় রুজুকৃত মামলায় বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

এই সম্পর্কিত সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button